টোকেন দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম

টোকেন দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম

ভোটার তথ্য নিবন্ধন করার পর আপনাদেরকে যখন টোকেন দেয়া হয়েছে তখন সেই টোকেন দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম জেনে নিন। নির্বাচন কমিশনের ভাষায় যেটাকে ভোটার নিবন্ধন স্লিপ নাম্বার বলা হয় সেটাকে অনেকেই টোকেন বলে থাকেন। স্বাভাবিক দৃষ্টিকোণ থেকে আমরা খন্ড কোন কাগজকে অথবা ক্ষুদ্র কোন কাগজকে টোকেন হিসেবে মনে করি।

আইডি কার্ডের তথ্য নিবন্ধন করার সময় তথ্য নিবন্ধনের পেজের নাম্বার উল্লেখিত যে টোকেন আপনাকে প্রদান করা হয়েছে সেটি যদি আপনার কাছে থাকে তাহলে কিছু নিয়ম অনুসরণ করার মধ্য দিয়ে ভোটার আইডি কার্ড বের করতে পারবেন। যদি আপনার কাছে টোকেন থেকে থাকে তাহলে এই পোস্ট আপনারা শেষ পর্যন্ত অনুসরণ করুন। আর এই অনুসরণ করার মধ্য দিয়ে আপনি ভোটার আইডি কার্ডের অনলাইন কপি খুব সহজেই ডাউনলোড করতে পারবেন অথবা ভোটার তথ্য চেক করতে পারবেন।

সাধারণত আইডি কার্ডের তথ্য নিবন্ধন করার পর অনেক দিন পরে অরিজিনাল ভোটার আইডি কার্ড প্রদান করা হয়। এতদিন অপেক্ষা করে না থেকে আপনি যদি আপনার টোকেন নাম্বার কাজে লাগাতে পারেন তাহলে এনআইডি সার্ভিসের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে ভোটার আইডি কার্ডের সফট কপি ডাউনলোড করতে পারবেন। আইডি কার্ড ডাউনলোড করার জন্য ভোটার আইডি কার্ডের নাম্বার অথবা টোকেন নাম্বার থাকলেই হবে। আমরা এখানে আপনাদের সুবিধার জন্য টোকেন নাম্বার দিয়ে কিভাবে আইডি কার্ড বের করতে হয় তার বিস্তারিত নিয়ম জানিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করব। আপনারা শুধু আরেকটি নতুন ট্যাব ওপেন করে এই নিয়ম অনুসরণ করার মধ্য দিয়ে এনআইডি কার্ড ডাউনলোড করে নিবেন।

সর্বপ্রথমে আপনাদেরকে জানিয়ে দিতে হবে টোকেন নাম্বার দিয়ে কিভাবে এনআইডি কার্ড ডাউনলোড করতে হয় এবং কোথায় থেকে ডাউনলোড করতে হয় সে সম্পর্কে। বর্তমানে আইডি কার্ডের যাবতীয় সেবা যে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে পরিচালনা করা হচ্ছে সেই ওয়েবসাইটের লিংকগুলো
https://services.nidw.gov.bd/nid-pub/ ।

এই লিংক আপনারা এখান থেকে কপি করে নিবেন এবং গুগল ক্রোম ব্রাউজার অথবা অন্য কোন ব্রাউজারে গিয়ে পেস্ট করে সার্চ অপশনে ক্লিক করবেন। ফলে অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে চলে যেতে পারবেন। এখানে গিয়ে আপনার আইডি কার্ড বের করার জন্য সর্ব প্রথমে অ্যাকাউন্ট নেই এবং রেজিস্ট্রেশন করুন নামক যে অপশন রয়েছে সেখানে ক্লিক করতে হবে। সেখানে ক্লিক করলেই সর্ব প্রথমে আপনার সামনে একটি নতুন পেজ ওপেন হয়ে যাবে এবং প্রত্যেকটি তথ্যের ঘরে তথ্য ইনপুট করতে হবে।

তথ্য ইনপুট করার ক্ষেত্রে প্রথমত আপনি সেখানে ভোটার আইডি কার্ড পাননি বলে আপনার টোকেন নাম্বার ব্যবহার করবেন। তারপরে আপনার জন্ম তারিখ সংক্রান্ত তথ্য এবং ক্যাপচা কোডের তথ্য সেখান থেকে ভালোমতো বুঝে নিয়ে প্রদান করতে হবে। আপনি যখন পরবর্তী পেয়ে যাবেন তখন আপনাকে ঠিকানা সংক্রান্ত তথ্য প্রদান করতে হবে এবং এই ঠিকানা সংক্রান্ত তথ্য প্রদান করার ক্ষেত্রে খুব একটা ঝামেলা হবে না।

কারণ সেখানে কোন তথ্য আপনাকে আলাদাভাবে প্রদান করতে হবে না এবং প্রত্যেকটি তথ্য অপশনের মাধ্যমে আপনাকে প্রদান করতে হবে বলে কোন ঝামেলা নেই। সেই পেজের তথ্য দিয়ে দেওয়ার পরে আপনারা যখন পরবর্তী পেয়ে যাবেন তখন একটি মোবাইল নাম্বার স্টার চিহ্ন দিয়ে ঢেকে রাখা হবে এবং সেটা আপনাকে বুঝতে হবে যে আপনার নাম্বার কিনা।

যদি আপনার নাম্বার হয়ে থাকে তাহলে মেসেজ নেওয়ার জন্য বার্তা পাঠান অপশনে ক্লিক করবেন। এতে আপনার ফোনে একটি ওটিপি মেসেজ চলে আসবে এবং সেটা ওয়েবসাইটে ইনপুট করবেন। চতুর্থ ধাপে আপনাদেরকে এনআইডি ওয়ালেট নামক একটি সফটওয়্যার প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করতে বলবে এবং সেখানে লিংক প্রদান করা হবে। যার টোকেন নাম্বার দিয়ে যার আইডি কার্ড বের করতে চাচ্ছেন তার মুখমন্ডল সফটওয়্যার এর সামনে আনতে হবে এবং নিশ্চিত করতে হবে যে এই আইডি কার্ডের আসল মালিক এটা ডাউনলোড করছেন।

এভাবে আপনারা প্রত্যেকটি কাজ সম্পন্ন করবেন এবং সফটওয়্যার এর কাজ শেষ হয়ে গেলে ওয়েবসাইটে ফেরত আসতে বলা হবে। তবে মুখমন্ডল বিভিন্ন অ্যাঙ্গেলে ঘোরানোর দিক থেকে সেখানে দিকনির্দেশনা প্রদান করা হবে এবং একটি ডেমো আপনাদেরকে আগে থেকে দেখানো হবে। এই কাজগুলো সম্পন্ন করে ওয়েবসাইটে ফেরত এসে একটি ইউনিক ইউজারনেম এবং পাসওয়ার্ড সেট করতে হবে।

এগুলো সেট করার পরে আপনি যখন আপনার একটি বিস্তারিত প্রোফাইল ওপেন করতে পারলেন তখন অবশ্যই আপনার পাসওয়ার্ড মনে রাখবেন। কারণ এই পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করে আপনি আপনার একাউন্টে প্রবেশ করে পরবর্তীতে আইডি কার্ড সংক্রান্ত যাবতীয় সেবা পেতে পারবেন। আর সেখান থেকেই ডাউনলোড অপশন এ ক্লিক করার মাধ্যমে আইডি কার্ডের পিডিএফ ফাইল বের করে নিতে পারবেন এবং ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *